এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট

এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট পাওয়ার আনন্দ-দুঃখ অনুভূতি

সময়টা ছিল ২০২১ এড়িয়ে কুশাল যেটা আমাদের জন্য মরতেও শান্তিপুর সাল ছিল না অনেক ভয়াবহ একটা বছর এটা এ বছরে আমরা হারিয়েছি লক্ষ লক্ষ প্রাণ লক্ষ লক্ষ তাজা প্রাণ সমস্ত পৃথিবী জুড়ে ছিল মহামারী করোনাভাইরাস যেখানে শুধু শিক্ষা ক্ষেত্রে ঝুঁকি নয় সমস্ত পৃথিবীতে প্রত্যেকটা মানুষের বুকে প্রত্যেকটা মানুষ আমরা আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেমে এসেছিল যেটা আমাদের কন্ট্রোল করতে হয়েছে বিশেষ করে এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি আমাদের কেমন ছিল এটা একটা বিষয়।

আমাদের এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট ৩০-১২-২০২১ ইং তারিখে। তবে আজকে শেয়ার করব রেজাল্ট পাওয়ার পর এবং আগের অনুভূতি কেমন ছিলো সেটা অবশ্য অনেক ভয়াবহ হয়ে থাকে সবার জন্য তবে বিশেষ করে আমার জন্য একটু বেশি ভয়াবহ হয়েছিল। আসলে আমরা যখন পরীক্ষা দেয় তখন অনুভূতিটা বুঝতে পারিনা তখন আমরা দ্রুত পরীক্ষা শেষ করার চেষ্টা করে এবং সহজেই একটা প্রশ্ন লেখার চেষ্টা করে আমরা চিন্তা করি না যখন রেজাল্ট দিবে তখন আমাদের রেজাল্ট কেমন আসতে পারে তাই হয়তো আমাদের এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে।

আমরা যখন পরীক্ষার খাতায় লেখালেখি করি তখন আমরা মোটেও বুঝতে পারিনা যে সামনে যখন আমাদের পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে তখন আমাদের অবস্থা কেমন হবে তখন আমাদের অনুভুতি কেমন হবে তখন আমাদের পরিবার আমাকে কতটা বুঝবে আমার পরিবার আমাকে কতটা বুঝতে সক্ষম হবে। আমরা বুঝতে পারি না যে আমাদের পরিবার আমাদের বুঝবে কিনা অনেক পরিবার রয়েছে যারা পরীক্ষার রেজাল্ট হওয়ার পরে এটা যদি তাদের মনমতো না হয় সেক্ষেত্রে তারা বকাঝকা করে যার জন্য অনেক আত্মহত্যা করে সুইসাইড করে কিন্তু এতে কি সমাপ্তি ঘটবে?

কখনোই না এটা মোটেও সমাপ্তি ঘটবে না তবে আজকের বিষয় টা একটু ডিফারেন্ট আমি তাদের সাথে আলোচনা করছি। আবার পরীক্ষার রেজাল্ট কেমন হয়েছিল কত পেয়েছি এবং আমার এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট পাওয়ার আগে এবং এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট হওয়ার পরের অনুভূতিগুলো কেবলমাত্র আপনার সাথে আমি শেয়ার করছি হয়তো এই অনুভূতি থেকে আপনিও কিছু একটা গ্রহণ করতে পারবেন আশা করা যাচ্ছে।

আরো পড়ুনঃ  জীবনে লক্ষ্য অর্জনের ৫-টি গুরুত্বপূর্ণ উপায়

এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট আমার কেমন ছিল?

এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট

আমার এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট ছিল ৪.৭৫ পয়েন্ট তবে এটা আমার জন্য অনেক বেশি খারাপ ছিল না আবার অনেক বেশি ভালো ছিল না আমি যখন পরীক্ষা দিয়েছিলাম তখন আমি আরও একটু বেশী ডিজার্ভ করেছিলাম কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রী অথবা শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে যেটা বিবেচনা করা হয়েছিল সেটা হচ্ছে আমার এইট এর পরীক্ষার রেজাল্টের উপর ভিত্তি করে অনেকটা ম্যাপিং করা হয়েছে যার জন্য রেজাল্ট একটু কমে এসেছে আর যদি এখন পুরো পরীক্ষাগুলো হত সেখেত্রে আমার রেজাল্ট হয়তো অনেক বেশি ভালো হতো আর আমি যেটা ডিজার্ভ করেছিলাম সেটাই পেতাম আমার এমনটাই মনে হচ্ছে বাকি কি হতো সেটা কেবলমাত্র আল্লাহ তা’আলা জানেন।

রেজাল্ট দেয়ার জন্য কয়েকটা তারিখ কি নির্দিষ্ট করা হয়েছিল যদিও প্রত্যেকটা তারিখ একটা করে গুলির মত আমাদের কাছে আমরা যারা এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্টের জন্য অপেক্ষা করেছি সবার কাছে মনে হত কখন রেজাল্ট দিবে কখন দেখবো সময় যেন কাটে না আমাদের সময় যেন যেতে চাইত না আমরা যেন খুব বেশি হতাশায় ভুগতাম কখন আমাদের সময় আসবে তখন পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে সব বিষয় নিয়ে আমরা অনেক বেশি টেনশনে ছিলাম। অতঃপর আমাদের টেনশনের সমাপ্তি ঘটল বুধবার দুপুর ১২ টার পরে।

এবং এই সমাপ্তির পড়ে অনেকেই নিজের জীবনকে নিজের হাতে শেষ করে ফেলেছে আবার অনেকে সামনের দিকে এগোনোর স্বপ্ন দেখছে এভাবেই আমাদের মত থেকে অনেক প্রাণ ঝরে গিয়েছে আবার কেউ নতুন করে স্বপ্ন বাজার চেষ্টা করেছে কিন্তু দুর্ভাগ্য হচ্ছে আমাদের আমরা তাদের জন্য কিছুই করতে পারছি না কিংবা এখানে সরকার কিংবা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কিছুই করার থাকেনা তবে তারা কিন্তু চাইলেই আরেকবার আবেদন করতে পারত পরীক্ষা দেয়ার জন্য হয়তোবা সফল হলে হতেও পারতো।

পরীক্ষার রেজাল্ট কখন দিবে তার আগে থেকেই আমার মুখ থেকে গলা থেকে খাবার জন্য ডাকছে না সবকিছু যেন অদ্ভুত লাগছে সময় যেন যাচ্ছে না খাবার খেতে ইচ্ছা করছে না সবসময় মনে হচ্ছে আবার পেটের ভিতর অনেক খাবার পড়ে আছে কিন্তু না সত্যিকার অর্থে খাবার খাওয়ার মত তৃষ্ণা আমার নেই খাবার খাওয়ার মত মন মানসিকতা আমার মধ্যে নেই আমি চাইলেও তখন খাবার খেতে পারতাম না এরকম কয়েক দিন কাটতে লাগল প্রধানমন্ত্রীর সফরে যাওয়ার উপলক্ষে পরীক্ষার রেজাল্ট দেয়ার তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে যদিও এটা আমাদের জন্য খুবই দুঃখজনক ছিল ছিল খুবই কষ্টকর ছিল আমাদের জন্য ভাল হত।

আরো পড়ুনঃ  জীবনে সফলতা কোথায় গিয়ে থামবে?

অতঃপর সময় এল একটু পরেই পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে এখন যেমন আমার হাত-পা সবকিছু কাঁপছে আমি অনলাইন থেকে দেখার চেষ্টা করতেছি কিন্তু তাদের সার্ভার ডাউন এডুকেশন ওয়েবসাইট রয়েছে বাংলাদেশের ওখানে এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট দেখার জন্য সেখানে সার্ভার পুরোপুরি ডাউন আমি অনেকবার চেষ্টা করেও পারছি না মনে হচ্ছে বারবার ব্যর্থ হয়ে যাচ্ছে আমার হাত পা কাপছে আমি বার বার ট্রাই করতে পারছি না এরপরে আমি শর্টকোড এবং বোর্ড দিয়ে আমি মেসেজ করলাম মেসেজের কোন রিপ্লাই আসছেনা এবার মনে হচ্ছে আমার কলিজা কাঁপতেছে কিছু বুঝতে পারছিনা কি করবো হতাশায় আমি ঘিরে টইটুম্বুর হয়ে যাচ্ছে।

এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট পাওয়ার পরপরই কি হয়েছে?

এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট

একটা মুহূর্তে এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট ফলাফল হাতে পেয়েছি অর্থাৎ এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল পাওয়ার জন্য জব ওয়েবসাইট রয়েছে সেখানে সার্চ করেছি এবং সবকিছু ঠিকঠাক ভাবে ফিলাপ করে সাবমিট করার পরে সামনে চলে আসলো এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল পরীক্ষার রেজাল্ট তখন মনের মধ্যে যেন বেঁচে থাকলেও একটা স্বপ্ন খুজে পেলাম তবে এর কিভাবে আরেকটা ঘটনা ঘটেছিল সেটা হচ্ছে আমি বোর্ড নাম্বার ভুল করে মেসেজ করার পরে একটা রিপ্লাই এসেছে যে তার পয়েন্ট ছিল ৩.৩৫ আমি তখনই দুমড়ে-মুচড়ে একদম খ্যাত হয়ে গিয়েছিলাম মুহূর্তেই আমার চোখ থেকে পানি পড়ে গিয়েছিল এরপর পরে আমি খেয়াল করলাম উপরে এটা কোন একটা মেয়ের নাম দিকে চলে এসেছে আবার শান্ত হলাম মুহূর্তেই আবার সার্চ করলাম ঠিকমতো পরে যখন দেখলাম আমার এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট ৪.৭৫ তখন একটু আস্থা পেলাম এবং আম্মু আব্বুকে বলা মাত্রই তারা অনেক বেশি খুশি হয়েছিলেন।

আরো পড়ুনঃ  জীবনকে সহজ করা যায় কিভাবে?

অতঃপর তারা আমাকে ধরে চুমু খেতে লাগলেন এবং দোয়া করে দিলেন আমার মন থেকে অনেক বেশি খুশি চলে আসলো যদিও আমি আর একটু ফলাফল ভালো করতে পারলে আমার আরও বেশি ভালো লাগতো কিন্তু মহান আল্লাহতালা যেটা দিয়েছেন এরপর আমি অনেক বেশি খুশি এবং অনেক বেশি অটল রয়েছে। অতঃপর আমি আমার বন্ধু বান্ধবী আত্মীয়-স্বজন সবাইকে জানালাম সবাই খুশি হয়েছেন কিন্তু এই সময়টাতে অনেকেই তার আত্মীয় স্বজনদের ফোন রিসিভ করতে পারেনি তার আত্মীয় স্বজনকে জানাতে পারেনি আবার অনেকে এই সময়টাতে নিজের জীবনকে মুহূর্তের মধ্যে শেষ করে ফেলেছে নিজের জীবনকে সামনের দিকে আগানো জন্য মোটেও চেষ্টা করে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখে যুদ্ধ করার জন্য চেষ্টা করেন এভাবেই তার জীবনটা তছনছ হয়ে গিয়েছে।

এভাবেই প্রত্যেকটা মুহূর্ত প্রত্যেকটা সময় শেষ হয়ে যাচ্ছে মানুষের। যারা এবার আত্মহত্যা করেছে যারা এভাবে নিজের জীবনকে নিজের হাতে শেষ করে দিয়েছে তারা যদি ভাবতো এটাই তার জীবনের শেষ চেষ্টা নয় চেষ্টা কর আরো অনেক সময় আছে অনেক মাধ্যম রয়েছে তাহলে তারা হয়তো আত্মহত্যা করত না কিন্তু ফ্যামিলি থেকে যাদের এ ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হয় তারাই কেবল মাত্র আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় যারা আছেন সবাইকে বোঝা উচিত সবাইকে সবাইকে বুঝিয়ে দেয়া উচিত কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যায় মানুষের জীবনে আমাদের ফ্যামিলি যারা রয়েছে তাদের বোঝা উচিত হয়তো আমাদের চেষ্টায় এটাই শেষ নয় আমাদের চেষ্টা করার সুযোগ আছে আমাদের চেষ্টা করতে সহযোগিতা করা উচিত কিন্তু তা না করে আমরা কেবলমাত্র ফ্রেশ করার জন্যই লেগে থাকে এর পরে আমাদের জীবনটা নিমিষেই শেষ হয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *