ফেসবুক ব্যবহার
ফেসবুক ব্যবহার

ফেসবুক ব্যবহারের বিভিন্ন সুবিধা ও অসুবিধা

ফেসবুক আসলে কি?

ফেসবুক ব্যবহারে! ফেসবুক হলো বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সবথেকে বড় একটি সাইট। তাছাড়া এটি বাংলাদেশ এর সবথেকে জনপ্রিয় একটি সোশ্যাল মিডিয়া। বিভিন্ন তথ্যমতে জানা যায় ফেসবুক একটি আমেরিকান প্রতিষ্ঠান। ফেসবুকের যাত্রা শুরু হয় ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে। গুগোল কে টপকে ফেসবুক ২০১৭ সালে বিশ্বের সবথেকে বেশি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট এর তালিকায় সবার শীর্ষে চলে আসে।

ফেসবুকের নির্মাতা হল মার্ক জুকারবার্গ। যে কেউ চাইলে ফেসবুকে খুব সহজে একাউন্ট বা আইডি খুলতে পারেন। এর জন্য কোন প্রকার ট্যাক্স বা টাকার প্রয়োজন পড়ে না সম্পূর্ণ ফ্রিতে ফেসবুক একাউন্ট খোলা যায়। ফেসবুকের মাধ্যমে বন্ধু আত্মীয়স্বজন সবার সাথে যেকোনো সময় ফ্রিতে চ্যাটিং, ভিডিও চ্যাটিং, বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করতে পারবেন এবং নানারকম ফিচার উপভোগ করতে পারবেন। বর্তমানে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫০০ মিলিয়নেরও বেশি, যা দিন দিন আরও ঊর্ধ্বগতির দিকে যাচ্ছে।

ফেসবুক ব্যবহার করার জন্য আপনি নানা কিছু ব্যবহার করতে পারেন, যেমনঃ কম্পিউটার, মোবাইল ফোন। ডেক্সটপ ল্যাপটপ  ইত্যাদি। সবচেয়ে সহজ ভাবে ব্যবহার করা যায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এবং এটি বর্তমানে সবচেয়ে ব্যবহার উপযোগী ডিভাইস। ফেসবুক যেমন মানুষ সব থেকে বেশি ব্যবহার করে থাকে ঠিক তেমনি এর কিছু সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে। নিচে সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলোঃ

ফেইসবুক ব্যবহারের বিভিন্ন সুবিধা ও অসুবিধাঃ

ফেসবুক যেমন বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া, তাই এর কিছু সুবিধাও রয়েছে আবার কিছু অসুবিধাও রয়েছে।অসুবিধার তুলনায় সুবিধার সংখ্যাটা হয়তো অনেক বেশি। তাই আপনি নিজেও যদি একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে আপনার ফেসবুকের সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে জানা অত্যন্ত প্রয়োজন। তারপর আপনি নিজেই বিচার করতে পারবেন আপনার জন্য ফেইসবুক ব্যবহার করাটা কতটা সুবিধাজনক। তাই চলুন জেনে নেয়া যাক ফেসবুক ব্যবহারের সুবিধা ও অসুবিধা গুলো কি কি। প্রথমে আমরা ফেসবুকের সুবিধা দিয়েই শুরু করছি।

আরো পড়ুনঃ  নিউজ পোর্টাল থেকে ইনকাম করা

ফেসবুকের সুবিধা সমূহ গুলো হলো:

  • খুব সহজে বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে যে কারো সাথে সহজে যোগাযোগ করা যায়।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে অনেক অপরিচিত মানুষদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করা যায়।
  • আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের সাথে যখন খুশি তখন চ্যাট করা যায়,তাছাড়া ভয়েস কল ও ভিডিও কলে কথা বলা যায়।
  • যে কারো সাথে বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করা যায়।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও আপলোড করা যায়।
  • ফেসবুক পেজের মাধ্যমে বাড়িতে বসে থেকে ব্যবসা করা যায়।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে অনলাইন মার্কেটিং করা যায়।
  • ক্রেতাদের সাথে সহজে যোগাযোগ করে অনলাইন শপ চালানো যায়।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে রক্তদান সহ বিভিন্ন সেবামূলক কাজে অংশগ্রহণ করা যায়।
  • ফেসবুকের মাধ্যমে সামাজিক উন্নয়নশীল কাজে অংশগ্রহণ করা যায়।
  • অনেক পুরনো বা হারিয়ে যাওয়া মানুষদের সাথে কথা বলা যায়।
  • বেশি ব্যবহারকারী থাকার কারণে নিজের নাম ও কাজ কর্মধারা সবার কাছে ফেমাস বা বিখ্যাত হওয়া সম্ভব।
  • নতুন কিছু শেখা যায়।
  • বিশ্বের বিভিন্ন ধরনের খবর জানা যায়।
  • ব্যক্তিগত বিজ্ঞাপন প্রকাশ করা যায়।
  • নিজস্ব পণ্য নিয়ে ব্যবসা করে সফলতা অর্জন করা।

আরো নানারকম সুবিধা আছে যেগুলো বলে শেষ করা যাবে না। যদি আমরা ভাল কাজে ফেসবুক ব্যবহার করে থাকি তাহলে সুবিধার কোন শেষ থাকবে না। তাই আমরা সবসময় চেষ্টা করব ফেসবুককে ভালো কাজে ব্যবহার করে তার সুবিধা আদায় করার জন্য।

ফেসবুকের অসুবিধা সমূহ গুলো হলো:

  • বিভিন্ন ধরনের গুজব ছড়িয়ে মানুষদের মধ্যে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করা।
  • অন্যের পরিচয় বা ছবি ব্যবহার করে অন্যকে বিপদে ফেলা।
  • অন্যের একাউন্ট হ্যাক করে তার পরিচিত মানুষদের সাথে খারাপ ব্যবহার করা এবং তাদের টাকা হাতিয়ে নেওয…
  • কারো ছবিকে পর্ণগ্রাফিতে উপস্থাপন করে তার মান সম্মান নষ্ট করা।
  • মানুষদের হুমকি ও ভয় দেখিয়ে সর্বত্র কেড়ে নেওয়া।
  • রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে মিথ্যেই স্ট্যাটাস দিয়ে নিজে আইনগত ঝামেলায় জড়িয়ে যাওয়া।
  • মিথ্যা প্রেমের সম্পর্ক স্থাপন করা।
  • পড়াশোনা বাদ দিয়ে অযথা ফেসবুকে সময় নষ্ট করা এবং পরীক্ষায় খারাপ রেজাল্ট করা।
  • অনেক রাত পর্যন্ত ফেসবুক ব্যবহার করার কারণে বিভিন্ন রকম স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি হয়।
  • অফিস চলাকালীন কাজকর্ম বাদ দিয়ে ফেসবুক ব্যবহার করে কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি করা।
  • অতিরিক্ত ফেসবুক ব্যবহার করা শারীরিক ও মানুষিক দুই ধরনের ক্ষতির সম্ভাবনা।
আরো পড়ুনঃ  ব্যবহৃত মোবাইল কিনছেন না তো আপনি?

উপরের তথ্যগুলো উপস্থাপনের মাধ্যমে আশাকরি ফেসবুকের সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে ভালোই বুঝতে পেরেছেন|এখন আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে আপনার জন্য ফেসবুক ব্যবহার করা উচিত হবে নাকি অনুচিত। যদি উচিত বলে মনে হয় তাহলে অবশ্যই ফেসবুক ব্যবহার করে ফেসবুকের সুবিধা গুলো উপভোগ করুন। আর যদি অনুচিত মনে হয় তাহলে ফেসবুক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *